৯ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ বিকাল ৪:৫২
ব্রেকিংনিউজ
মোটা অঙ্কের টাকা সমাজ সংস্কারের ছাতা দক্ষিণ সুনামগঞ্জে করোনাকালে ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে গভীর নলকূপ, স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারি লেট্টিন ও হাত ধোয়ার বেসিনে মানুষের উপকার ভোক্তা অধিকারের অভিযান পাঁচ প্রতিষ্ঠানে ১৮ হাজার টাকা জরিমানা মাটি মিশ্রিত বালি ও পাথর দিয়ে চলছে ঢালাই কাজঃব্যপক অনিয়মের অভিযোগ দ. সুনামগঞ্জে সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ, দুলাভাইর হাতে শ্যালক খুন দ. সুনামগঞ্জে ভোক্তা অধিকারের অভিযান, ৬ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা রাসেল বক্সের পিতার মৃত্যুতে আনছার উদ্দিনের শোক প্রকাশ দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের মাস্ক বিতরণ ও সচেতনতামূলক প্রচার ৫ এপ্রিল থেকে লকডাউন: ওবায়দুল কাদের সুনামগঞ্জের কৃষি বিভাগের শুভংকরের ফাঁকি অসময়ে ধান কাঁটার তেলেসমাতি

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে করোনাকালে ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে গভীর নলকূপ, স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারি লেট্টিন ও হাত ধোয়ার বেসিনে মানুষের উপকার

নিজস্ব প্রতিবেদক ::
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ৯ বার পঠিত

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে করোনাকালে ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে গভীর নলকূপ, স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারি লেট্টিন ও হাত ধোয়ার বেসিনে মানুষের উপকার

সুনামসগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪ হাজার গভীর নলকূপ, ৩ হাজার ৬০০ স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন ও ৪টি হাত ধুয়ার বেসিন করোনা কালে উপজেলার প্রায় দেড় লক্ষ মানুষের উপকারে আসছে। উপজেলার প্রতিটি গ্রামের হতদরিদ্র মানুষ এখন বিশুদ্ধ পানি পান করতে পারছেন, সেই সাথে ব্যবহার করছেন স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন। অন্যদিকে করোনার প্রদুরভাব থেকে উপজেলাবাসীকে রক্ষা করতে উপজেলার ৪টি জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে বসানো হয়েছে হাত ধুয়ার বেসিন। এই বেসিন গুলো ব্যাপক ভাবে করোনাকালে উপজেলার মানুষজন ব্যবহার করছেন।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপির একান্ত প্রচেষ্ঠায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুর উপজেলার প্রতিটি গ্রামের হতদরিদ্র পরিবারের জন্য বিশুদ্ধ পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন নিমার্ণের জন্য ১ শত কোটি টাকার বরাদ্দ অনুমোদন করে নিয়ে আসেন। এর মধ্যে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ৫০ কোটি ও জগন্নাথপুর উপজেলায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে।
সরেজমিনে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস, দরগাপাশা, পাথারিয়া, শিমূলবাক, পশ্চিম পাগলা, পূর্ব পাগলা, পূর্ব বীরগাঁও ও পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের ঘুরে দেখা যায়, গ্রামের হতদরিদ্র মানুষের উঠোনে উঠোনে বসানো হয়েছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলের গভীর নলকূপ, সেই সাথে বসানো হয়েছে স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন।
জয়কলস গ্রামের আস্তমা গ্রামের হতদরিদ্র খুদেজা বিবি জানান, আগে অন্যের বাড়িতে পানি আনতে হতো, তার পরও সব সময় আনা যেতো না, প্রতিনিয়ত নদীর পানই পান করতে হতো। এখন সরকারি নলকূপ পাওয়ায় আর নদীর পানি পান করতে হয় না।
আস্তমা গ্রামের কোষ্ঠ রোগে আক্রান্ত হতদরিদ্র খোয়াজ আলী জানান, আমি কারো বাড়ির নলকূপে যেতে পারতাম না। আমি সহ আমার পরিবারের কারও কাছে কোন মানুষ আসতো না, তাই বাধ্য হয়ে খালের পানি পান ও ব্যবহার করতে হতো। এখন সরকারি নলকূপ পাওয়াই বিশুদ্ধ পানি পান করতে পারছি।
অন্যদিকে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চত্বরে মঙ্গলবার দুপুরে গিয়ে দেখা যায়, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশনের নির্মিত হাত ধুয়ার বেসিন করোনাকালে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনিক ভবনে সেবা নিতে আসা লোকজন ব্যাপক ভাবে ব্যবহার করছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিষদের চেয়রম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদৃন্দ মানুষকে হাত ধুয়া ও মূখে মাস্ক নিশ্চিতে মানুষকে প্রতিনিয়তই উদ্ভোদ্ধ করে আসছেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা ভবন চত্বরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশনের নির্মিত হাত ধুয়ার বেসিন সেবা নিতে আসা লোকজন ব্যাপক ভাবেই ব্যবহার করছেন। প্রতিনিয়তই প্রশাসনিক কর্মকর্তারা বেসিনে সাবান ও পানির ব্যবস্থা নিশ্চিত করছেন। যাতে করে মানুষজন জীবানু মুক্ত হয়ে প্রশাসনিক ভবনে প্রবেশ করনে।
দক্ষিণ সুনামাগঞ্জ উপজেলার পাথারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. আমিনুর রশিদ জানান, আমার ইউনিয়নে মানুষ আজ অনেক আনন্দিত, মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপির একান্ত প্রচেষ্ঠায় আজ ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রামের হতদরিদ্র মানুষের বিশুদ্ধ পানি পানে ব্যবস্থা হয়েছে।
উপজেলার পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুর কালাম জানান, আগে আমার ইউনিয়নের হতদরিদ্র মানুষজন খালের পানি পান করতো ও খোলা জায়গায় পায়খানা করতো। এখন সরকারি নলকূপ ও স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন পাওয়ায় বিশুদ্ধ পানি পান করতে পারছেন, সেই সাথে স্বাস্থ্য সম্মত ভাবে স্যানিটারী লেট্টিন ব্যবহার করছেন।
দক্ষিণ সুনামসগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নুর হোসেন জানান, মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপির একান্ত প্রচেষ্ঠায় আমাদের উপজেলায় হতদরিদ্র মানুষের যে পরিমান উপকার হয়েছে তা স্বপ্নেও কল্পনা করা যেতো না। আমি দরিদ্র পরিবারের মানুষজন বিশুদ্ধ পানি পান ও স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন ব্যবহার করছেন। সেই সাথে আমাদের উপজেলা পরিষদ চত্বরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশনের নির্মিত হাত ধুয়ার বেসিন করোনা কালে পরিষদে সেবা নিতে আসা লোকজন ব্যাপক ভাবে ব্যবহার করছেন। আমরা প্রতিনিয়তই সাবান ও পানি নিশ্চিত করছি। যাতে করে এলাকার মানুষজন জীবানু মুক্ত হয়ে পরিষদের প্রবেশ করতে পারেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফারুক আহমেদ এ প্রতিবেদককে জানান, আমাদের উপজেলা মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি’র একান্ত প্রচেষ্ঠায় বৃহৎ জনগোষ্ঠি বিশুদ্ধ পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারীর আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। আমরা উপজেলাবাসী মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি’কে আন্তরিক ভাবে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই। তিনি যেনো এভাবে দরিদ্র জনগোষ্ঠির উন্নয়নের আরো বড় বড় প্রকল্প নিয়ে আসেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা জেবুন নাহার শাম্মী এ প্রতিবেদককে জানান, উপজেলা প্রশাসনিক ভবনে সেবা নিতে আসা লোকজন পরিষদ চত্বরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশনের নির্মিত হাত ধুয়ার বেসিনে সাবান দিয়ে আহ ধুয়ে জীবানু মুক্ত হয়ে মূখে মাস্ক নিশ্চিত করে প্রবেশ করতে হয়। আমি নিজেও এই বেসিনে হাত মূখ ধুয়ে অফিসে প্রবেশ করি। এখাসে সাবান পানির ব্যবস্থা সার্বক্ষণিক ভাবে রাখা হয়েছে। মাঝে মধ্যে কিছু দুষ্ঠু লোকজন সাবান নিয়ে যায়। সেই সাথে এই উপজেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠির জন্য এলাকার জনমানুষের নেতা মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি স্যার বিশুদ্ধ পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত স্যানিটারী লেট্টিন দেওয়ায় এলাকার মানুষ অনেক উপকৃত হয়েছেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী (অ.দা) আব্দুর রব সরকার জানান, মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি স্যারের একান্ত প্রচেষ্ঠায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ ও জগন্নাথপুর উপজেলায় ১শত কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্প চলমান রয়েছে। আমার মাঠ পর্যয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি স্যারের প্রতিনিধিদের নিয়ে প্রতিটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে উপকার ভোগী বাচাই করেছি। প্রকৃত হতদরিদ্র লোকজনই এই প্রকল্পের আওতায় এসেছেন। সেই সাথে করোনা প্রদুভাব রুখতে আমরা জনগুরোত্বপূর্ণ স্থানে হাত ধুয়ার বেসিন নির্মাণ করেছি। এই বেসিন গুলো করোনাকালে ব্যাপকভাবে মানুষের উপকারে আসছে। প্রতিনিয়তই এই বেসিন গুলোতে সাবান পানি নিশ্চিত করা হচ্ছে। ##

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ধরনের আরও সংবাদ

© All rights reserved ©2020 mahasingh24.com Developed by PAPRHI.XYZ
Theme Dwonload From Ashraftech.Com
ThemesBazar-Jowfhowo