১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ দুপুর ২:১০

পশ্চিম পাগলা ইউপি ছাত্রলীগের সম্মেলন কাল, কারা আসছেন নেতৃত্বে?

নোহান আরেফিন নেওয়াজ
  • আপডেট বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩০৭ Time View
নোহান আরেফিন নেওয়াজ : সব অপেক্ষার অবসান শেষে আগামীকাল শুক্রবার বিকালে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে শান্তিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী এম.এ মান্নান। ফলে সম্মেলনকে সফল করতে নেওয়া হয়েছে সব ধরনের উদ্যোগ।
এদিকে সম্মেলনকে ঘিরে ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে উপজেলার রাজনীতির আতুরঘর খ্যাত পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের পাগলা বাজার এলাকাসহ ইউনিয়নের গুরুত্বপুর্ণ স্থানগুলো।বিশেষত পাগলা বাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে সম্মেলনের নির্ধারিত ভ্যেনু ‘কলেজ মার্কেট’ অংশে চোখ পড়লেই দেখা মিলবে এসব ব্যানার-ফেস্টুনের। ব্যানার-ফেস্টুন সাঁটিয়ে নিজের প্রার্থীতার জানান দিচ্ছেন একাধিক প্রার্থী। এছাড়া তাদের সমর্থন দিয়ে ব্যানার-ফ্যাস্টুন সাঁটিয়েছেন তাদের কর্মী-সমর্থকরাও। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও সক্রিয় রয়েছেন তারা।
তবে সব প্রার্থীরাই পরিকল্পনামন্ত্রীকে ঘিরে রাজনীতিতে সক্রিয় রয়েছেন। ফলে পছন্দের পদ ভাগিয়ে নিতে সর্বোচ্চ লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন পদপ্রত্যাশীরা। করছেন একাধিক সভা-সমাবেশ।
জানা যায় ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে সর্বোচ্চ গুরুত্বপুর্ণ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী প্রার্থীর সংখ্যা ৯ জন। তারমধ্যে সভাপতি পদ প্রত্যাশী ৪ জন। তারা হলেন মুবিন সিদ্দিক, রুহুল আমীন, সোহান আহমদ ও মনিরুজ্জামান শিপু। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী ৫ জন। তারা হলেন রাজ নূর আল হাসান, কামাল আহমদ, অনিশাহ, সাদিকুল ইসলাম টাপু এবং মাজহারুল ইসলাম।
এছাড়া সহ-সভাপতি পদে উজ্জ্বল আলম, উৎফল সুত্রধর, ইউসুফ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নাদের খাঁন, রেজাউল আলম রাজা এবং সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে আব্দুল হক ও ফয়সদ আহমদ প্রার্থীতার জানান দিচ্ছেন। তবে পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের নেতৃত্বে কারা আসছেন তা জানা যাবে আগামীকাল বিকালে।
এব্যাপারে সভাপতি পদপ্রার্থী মুবিন সিদ্দিকী বলেন, ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবেই আমার ছাত্র রাজনীতির শুরু। শুরু থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে রাজপথে সক্রিয় রয়েছি। বঙ্গবন্ধুর হাতেগড়া ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত রাখতে কাজ করে যাচ্ছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস উপজেলার নেতৃবৃন্দরা আমাকে কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ প্রত্যাশিত পদটি আমাকে উপহার দেবেন।
সভাপতি পদে আরেক প্রার্থী রুহুল আমিন জানান, ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে রাজপথে ছিলাম, আছি এবং থাকবো। দলের বিশ্বস্ত ভ্যানগার্ড হয়েই সামনের পথ চলতে চাই। আমার কাজের স্বীকৃতিস্বরুপ আমি সভাপতি পদটি পাবো উপজেলার নেতৃবৃন্দের প্রতি আমার সেই আস্থা আছে।
সম্মেলন সফল করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে জানিয়েছেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন তালুকদার। তিনি বলেন ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র মেনে যোগ্য প্রার্থীদেরকেই কমিটিতে স্থান দেওয়া হবে। কোনো অছাত্রদের কমিটিতে স্থান দেওয়া হবে না।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের অন্যান্য সংবাদ
Developed by PAPRHI
Theme Dwonload From Ashraftech.Com
ThemesBazar-Jowfhowo